Latest Entries »

Bpl Qualifiar-1, 2016


Today at 17.45 IST | 11.45 GMT


Match Starts in 13.00 IST | 7.00 GMT


এখনই চোখে নিউজিল্যান্ড সফর

.

.

বিদায়ের সুর বেজে উঠেছে বিপিএলে। লিগ পর্বের খেলা শেষ। কাল ও পরশু হবে এলিমিনেটর ও কোয়ালিফায়ার মিলিয়ে আরও তিনটি ম্যাচ। তারপর অপেক্ষা ৯ ডিসেম্বরের ফাইনালের। বিপিএল শেষের দিকে এগোচ্ছে, আর সামনে চলে আসছে নিউজিল্যান্ড সফর। বাড়ছে এ নিয়ে ব্যস্ততাও।

তবে এই ব্যস্ততা আপাতত মাঠের বাইরে। সিরিজ নিয়ে আজ বেলা ১১টায় মিনহাজুল আবেদীনের নেতৃত্বে নির্বাচক কমিটির সঙ্গে সভায় বসবেন ক্রিকেট পরিচালনা প্রধান আকরাম খান। অস্ট্রেলিয়া থেকে টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে আলোচনায় যোগ দেবেন জাতীয় দলের কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। উপস্থিত থাকার কথা টিম ম্যানেজার খালেদ মাহমুদেরও। মাহমুদ অবশ্য ব্যক্তিগত কারণে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড যাচ্ছেন না। সফরে আপত্কালীন ম্যানেজারের দায়িত্বে থাকবেন বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা ব্যবস্থাপক সাব্বির খান।
নিউজিল্যান্ডে সিরিজ খেলতে যাওয়ার আগে অস্ট্রেলিয়ায় নয় দিনের প্রস্তুতি ক্যাম্পে বিগ ব্যাশের দুটি দলের বিপক্ষে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলার কথা আছে বাংলাদেশ দলের। ইংল্যান্ড সিরিজের পর থেকে ছুটিতে থাকা হাথুরুসিংহে সিডনিতেই দলের সঙ্গী হবেন। সিডনির উদ্দেশে ৮ ও ১০ ডিসেম্বর দুই ভাগে ঢাকা ছাড়বেন ক্রিকেটাররা। সিডনি থেকে নিউজিল্যান্ডের ফ্লাইট ১৯ ডিসেম্বর। নিউজিল্যান্ড সফরের প্রাথমিক দল ঘোষণা হয়েছে আগেই। ২০ জনের দলের সঙ্গে বিসিবির ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামের আওতায় অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে যাওয়ার কথা নাজমুল হোসেন ও ইবাদত হোসেনের। স্ট্যান্ডবাই আছেন আরও নয় ক্রিকেটার।
কোচ-নির্বাচকদের আজকের সভার পর অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড সফরের বহরে দু-একটি মুখ বদলে যেতে পারে। খেলোয়াড়দের চোট-আঘাতের কারণে সেই সম্ভাবনাটা বেড়েছে। বিপিএলে হাঁটুর চোটে পড়ে মাঠের বাইরে চলে গেছেন মোহাম্মদ শহীদ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের আগে তাঁর দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা নেই। অস্ত্রোপচার লাগলে তো ছয় মাসের আগে ফেরাই হবে না। ইবাদতের সাইড স্ট্রেইনও পুরোপুরি সারেনি। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য তাই অন্য কারও কথা ভাবতেই হচ্ছে। বিবেচনায় আছেন অভিজ্ঞ পেসার রুবেল হোসেন ও কামরুল ইসলাম।
প্রাথমিক দলে থাকা লেগ স্পিনার তানভীর হায়দারও ডান হাতের মধ্যমায় চোট পান বিপিএলেই। ঢাকা ডায়নামাইটসের হয়ে কাল মাঠে ফিরলেও নির্বাচকেরা এখনো তাঁর ফিটনেসের ব্যাপারে নিশ্চিত নন। আজ সভায় বসার আগে তানভীরসহ সব খেলোয়াড়ের ফিটনেসের সর্বশেষ অবস্থা তাঁরা জেনে নেবেন বিসিবির ফিজিও-চিকিৎসকদের কাছ থেকে। এ ছাড়া বিপিএলে মাঠের বাইরের কিছু ঘটনারও প্রভাব পড়তে পারে দলে। শৃঙ্খলাভঙ্গের অপরাধে দু-একজন শাস্তি পেয়েছেন। এমন অভিযোগ আছে আরও দু-একজনের বিরুদ্ধে, যা প্রচারের আলোয় আসেনি। সভায় তাঁদের নিয়েও আলোচনা হওয়ার কথা।
প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন এসব নিয়ে কালই খোলাসা করে কিছু বলতে রাজি হননি, ‘শহীদকে আমরা টেস্টের আগে পাচ্ছি না, এটা মোটামুটি নিশ্চিত। ইবাদতও পুরোপুরি সুস্থ নয়। মিটিংয়ে আমরা এসব নিয়ে আলোচনা করব। নতুন কাউকে নিতে হলে সেটা মিটিংয়েই ঠিক হবে। তবে স্ট্যান্ডবাইসহ এর আগে আমরা যে খেলোয়াড় তালিকা দিয়েছি, বিকল্প হিসেবে তার বাইরে কাউকে নেওয়ার সম্ভাবনা নেই।’
কাঁধের চোট না সারায় আফগানিস্তান ও ইংল্যান্ড সিরিজে খেলা হয়নি মোস্তাফিজুর রহমানের। নিউজিল্যান্ড সিরিজেই তাঁকে পাওয়ার আশা বাংলাদেশের। কিন্তু সিরিজের শুরু থেকেই মোস্তাফিজকে পাওয়া যাবে কি না, সে ব্যাপারে নিশ্চিত নন জাতীয় দলের ট্রেনার মারিও ভিল্লাভারায়ান, ‘অনুশীলনে এখন সে মোটামুটি পূর্ণ গতিতেই বল করছে। আশা করছি, সফরের আগেই পুরো ফিটনেস চলে আসবে। তবে কাটার, স্লোয়ারের মতো স্পেশাল ডেলিভারিগুলো এখনো শুরু করেনি। সেগুলো শুরু করার আগে নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছি না।’ বিসিবির চিকিৎসক দেবাশিস চৌধুরী মনে করে, মোস্তাফিজ ও ইবাদত এখন সামর্থ্যের ৮০-৯০ ভাগ দিয়ে বল করতে পারছেন। এটা তাঁর কাছে আশাবাদী হওয়ার মতোই ব্যাপার।


Australia beat New Zealand by 68 runs

Man of the match Stev Smith


Captain Mahmudullah Blasts 50 (28)

Khulna Titans, having to win their last league game to qualify for the playoffs, did so emphatically courtesy MAHMUDULLA’s half-century. They finished the group stages in second position to ensure the first qualifier against the same opponents on December 6. The eliminator will be played between Chittagong Vikings and Rajshahi Kings.

Khulna, having never gone past 157 in the tournament, had to make their highest team total. And against a weakened Dhaka side that rested Dwayne Bravo and Andre Russell, they breezed to the target with 12 balls to spare.

It didn’t seem a cakewalk when they lost Andre Fletcher early. Mohammad Hasanuzzaman struck three sixes and as many fours in his 18-ball 40 to get them ahead of the asking rate. Mahmudullah then took over after Hasanuzzaman’s dismissal; he hit five fours and two sixes in his 28-ball 50. The trigger boost meant Abdul Mazid’s strike rate of 58.33, the lowest of the season for batsmen who have faced 35 or more deliveries, was negated.

Mahmudullah fell with Khulna needing eight, but with no pressure, they cantered home to dash the hopes of Rangpur Riders, who lost to Comilla Victorians earlier in the evening.

When Dhaka batted first, Kumar Sangakkara, reprieved on 2, brought up his second half-century of the tournament. The rest of the Dhaka batting line-up threw away starts with, with Mehedi Maruf, Nasir Hossain, Shakib Al Hasan, Seekkuge Prasanna and Ravi Bopara not going past 20. Junaid Khan picked up three wickets.


Goal Scorer: Luis Suarez from HEAD

Assist: Neynar Jr


Mashrafe Mortaza last played a test in 2009
The performance comes at a time when he’s been struggling with a hamstring injury that has forced him to bowl off a shorter run-up – down to 12 meters from the usual 21. Watching him bowl on Friday, it didn’t seem like he’d lost pace that generally hovers around the mid-130s kph. He regularly troubled the batsmen with seam movement. Just his body language and comfort in executing his skills felt like he was as comfortable with the short run-up as he seems with his usual run-up.
That invited the question if Mashrafe with a similar approach in Tests can be an effective solution to Bangladesh’s long-standing problem with their pace attack in Tests. He hasn’t played Tests since July 2009. In the time he’s been away, Bangladesh have largely struggled to find control with the new ball, leaving their spinners to wheel away irrespective of conditions.

The situation became dire in the Test series against England last month when Shafiul Islam and Kamrul Islam Rabbi were used for just 31 overs in which they picked one wicket. Though the Tests were played on spinner-friendly pitches, it wasn’t hard to miss Bangladesh’s lack of pace options.

Mashrafe will leave for Australia with the 22-member preliminary squad for a training camp in Australia next week. He is scheduled to lead the Bangladesh side for the three ODIs and three T20s in New Zealand from December 26, before the Test series begins on January 12.

Though it seems an improbable selection call at this stage, Mashrafe has little over a month to prepare for the New Zealand Tests. He has spent several months bowling off a short run-up, especially when he was going through long injury lay-offs, which means his tweaked approach may not entirely be alien to him.

This is also not the first time that Mashrafe has bowled well off a short run-up in competitive cricket. He did it in last season’s BPL and the Dhaka Premier League with some success, but to have him in the Test squad would obviously require him to be fitter and stronger.

Mashrafe has worked really hard on his fitness in recent times

That Mashrafe is currently going through his longest injury-free spell since he made his international debut in 2001 is also an indication that this could be the right time to ponder over the idea if he is keen. If the pitches in New Zealand continue to remain as grassy as it did against Pakistan recently, there is logic to think on the lines of having Mashrafe.

That however may not be easy and will need a lot of convincing within the hierarchy of Bangladesh cricket. The selection committee which includes head coach Chandika Hathurusingha would also consider factors like his gap in first-class cricket (he hasn’t played four-day cricket since January 2014). It was a factor when Taskin Ahmed was discussed as a potential Test candidate against New Zealand. Bangladesh Cricket Board president Nazmul Hassan would also be a key decision-maker in this situation but when the idea was floated in front of Mashrafe himself, he nearly ridiculed it.

“It is possible [to bowl with a short run-up] in Test matches, but one has to pick up wickets,” Mashrafe told ESPNcricinfo, before breaking into a broad smile, the kind that ridiculed the idea brought in front of him. But Mashrafe doesn’t think there’s too much of a difference. I can bowl all day if I bowl off the short run-up. I also hear that I was bowling in the same pace, around 130kph. Swing can be controlled but it is hard to hit the yorkers.

“You need the full momentum and speed for the yorker. Bowling the slower is possible but maybe not as effective as with the long run-up. What helps is that the other factors in my bowling remain same, and these include shoulder and hand speed and ability to seam or swing the ball. The running speed goes down but otherwise there aren’t many other changes.”

Rubel Hossain, who is among the standbys for Bangladesh’s training camp in Australia, has been Bangladesh’s best wicket-taker ever since Mashrafe stopped playing Tests. But his 29 wickets have come at an average of 79.58. Robiul Islam came close to being a long-term solution but it is said that the team management has long been unhappy with his fitness.

Within the current group that is selected to travel to Australia, Mustafizur Rahman is returning from a shoulder injury while Taskin is still considered a limited-overs prospect. Shafiul was rested after the first Test against England because of tiredness while Mohammad Shahid, who impressed in Tests in 2015, recently hurt his right knee and a decision on whether he will undergo surgery will be made at the end of December. Ebadat Hossain will require a fitness test in the next few days.

It leaves the selectors, who are scheduled to sit for a meeting on December 4, with a few decisions to make for the pace attack. While the ODI attack will rely much on Mashrafe and Taskin and Mustafizur’s full recovery, the Test attack is short of quality.

Rabbi, Rubel and Al-Amin Hossain are the remaining options, so why not Mashrafe, even if he is off a shorter run-up?


i

Starts in 17:45 local (11:45 GMT)


rangpur-riders-vs-barisal-bulls-predictions

Match in Progress


el-clasico-super-cup

আজ রাতে সেই মহারণ। মুখোমুখি বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদ। মুখোমুখি ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো আর লিওনেল মেসিও। যে দুজনই আসলে ঠিক করে দেন ম্যাচের ভাগ্য। লড়াইয়ে নামার আগে মেসি-রোনালদোর এল ক্লাসিকোর রেকর্ড একঝলকে দেখে নিন—
—মেসি এল ক্লাসিকোর ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতা। নামের পাশে ২১ গোল
—অবশ্য রিয়ালের বিপক্ষে গত পাঁচ ম্যাচে গোল পাননি মেসি। রিয়ালের বিপক্ষে এমন গোলখরায় আগে ভোগেননি
—ন্যু ক্যাম্পের চেয়ে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতেই বেশি গোল করেছেন মেসি। ২১ গোলের ১২টি (৫৭ শতাংশ) রিয়ালের মাঠে
—শুধু গোল করে নয়, করাতেও মেসি এগিয়ে। ৩২ ম্যাচে ১৩টি অ্যাসিস্ট করেছেন
—২৫টি এল ক্লাসিকো খেলে মাত্র ৭ জয় পেয়েছেন রোনালদো
—রোনালদো গোল করেছেন ১৬টি। মেসি ও তাঁর গোলগড় প্রায় সমান। ম্যাচপ্রতি রোনালদোর গোল দশমিক ৬৪ শতাংশ, মেসির দশমিক ৬৫ শতাংশ
—রোনালদো প্রতিপক্ষের মাঠে বেশি গোল করেছেন। ১৬ গোলের ১০টিই ন্যু ক্যাম্পে
—রিয়ালের হয়ে এল ক্লাসিকোতে রোনালদোর চেয়ে বেশি গোল আছে কেবল আলফ্রেডো ডি স্টেফানোর (১৮টি)‍
—রোনালদো অবশ্য মাত্র একটি অ্যাসিস্ট করেছেন
আজ অবশ্য এমএসএন বনাম বিবিসি লড়াই হচ্ছে না। চোটের কারণে গ্যারেথ বেল খেলছেন না। তবে তবু এল ক্লাসিকো বলে এই দুই আক্রমণত্রয়ীর প্রসঙ্গও উঠে আসছে বারবার। দেখে নিন মেসি-সুয়ারেজ-নেইমার বনাম বেল-বেনজেমা-ক্রিস্টিয়ানোর এল ক্লাসিকোর রেকর্ড—

—এমএসএন খেলেছে এমন এল ক্লাসিকোতে এখনো গোল করতে পারেননি মেসি
—এমএসএন বনাম বিবিসি মুখোমুখি হয়েছে এমন ম্যাচে কেবল লুইস সুয়ারেজ দুবার গোল করেছেন
—এমএসএন বনাম বিবিসির লড়াইয়ে একই ম্যাচে গোল করা ও করানোর রেকর্ড আছে কেবল নেইমারের
—এই মৌসুমে বিবিসি ৪৭ ম্যাচ খেলে করেছে ২৫ গোল। বেনজেমা ১৬ ম্যাচে ৬, বেল ১৬ ম্যাচে ৭, রোনালদো ১৫ ম্যাচে ১২ গোল
—এই মৌসুমে এমএসএন ৫০ ম্যাচে ৩৬ গোল করেছে। মেসি ১৬ ম্যাচে ১৯, সুয়ারেজ ১৮ ম্যাচে ১১ ও নেইমার ১৬ ম্যাচে ৬ গোল