সাকিবের ব্যাটিংয়ের ব্যাখ্যা নেই সামারাবীরার কাছে!

৮ বলে ১৮ রানে অপরাজিত। এটা টেস্ট, ওয়ানডে, নাকি টি-টোয়েন্টির ব্যাটিং? শেষ বিকেলে মাঠে নেমে এমন মারকাটারি ব্যাটিং কেন করলেন সাকিব আল হাসান? দিন শেষের সংবাদ সম্মলনে সাকিব আসেননি। তাই তাঁর কাছ থেকে ব্যাখা পাওয়া যায়নি। কলম্বো টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের কোনো খেলোয়াড় নন, এলেন ব্যাটিং পরামর্শক থিলান সামারাবীরা। বাংলাদেশ যেভাবে শেষ বিকেলে ৬ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারাল কিংবা সাকিব যে ঝড়ো ব্যাটিং করলেন, এর কোনো ব্যাখ্যা তাঁর কাছে নেই।

দ্বিতীয় দিনটাও নিজেদের করে নিতে বাংলাদেশকে কোনোভাবে ৪ ওভার কাটিয়ে দিলেই হতো। কাজটা কঠিন করে তুললেন ইমরুল-সাব্বিররা। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের এই আত্মাহুতির উত্তর কী? সামারাবীরা অসহায় আত্মসমাপর্ণই করলেন সংবাদমাধ্যমের কাছে, ‘এ নিয়ে আমার কোনো ধারণা নেই। একটা বাজে শট আমাদের বিপদে ফেলেছে। ইমরুলের আউটটা। আমি স্কিল নিয়ে কাজ করতে পারি। তবে আপনি যখন টেস্টে ব্যাটিং করবেন বুঝতে হবে প্রতিপক্ষ কী ছকে এগোচ্ছে। আপনার মধ্যে এই সতর্কতা থাকতে হবে। ২২ গজে আপনাকে বুদ্ধিমান হতে হবে। তবুও আমরা সৌভাগ্যবান ৫ উইকেট হারিয়ে দিন শেষ করেছি। আমি তো ভেবেছিলাম ছয়টা পড়ে যাবে!’

সামারাবীরার শঙ্কাটা প্রায় সত্যি করে ফেলছিলেন সাকিব! ১১ রানে একটি ‘জীবন’ও পেয়েছেন। দলের বিপর্যয় আর টেস্ট মেজাজ ভুলে বাঁহাতি অলরাউন্ডারের ধুমধাড়াক্কা ব্যাটিং নিয়ে যথার্থ উত্তর জানা নেই সামারাবীরার, ‘সত্যি বলতে এটা বলার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না। এটা আমার বোধের বাইরে।’ গত মাসে হায়দরাবাদ টেস্টে নিজের অতিরিক্ত শট খেলার প্রবণতা নিয়ে সাকিব বলেছিলেন, ‘আমি এভাবেই খেলি।’ বাংলাদেশ ব্যাটিং পরামর্শকের অবশ্য সাকিবের এই স্বাভাবিক খেলা নিয়ে প্রশ্ন নেই। কিন্তু তাঁর কথা, পরিস্থিতি কিংবা প্রতিপক্ষের কৌশলকেও বুঝতে হবে ব্যাটসম্যানকে, ‘আপনি আপনার স্বাভাবিক খেলা খেলতে পারেন। কিন্তু প্রতিপক্ষ কী করছে সেটাও বিবেচনায় নিতে হবে। এটাই ক্রিকেট। প্রতিপক্ষ কীভাবে ফিল্ডিং সাজাচ্ছে, কী হতে পারে—এসব বোঝাই আসল কথা। আপনি প্রতিদিন নিজের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারবেন না। এটা তো ওয়ানডে ক্রিকেট নয়, পাঁচ দিনের ম্যাচ। মানসিকভাবে শক্ত থাকতে হবে।’

আজ বাংলাদেশের শুরুটা হয়েছে দুর্দান্ত। তামিম ইকবাল-সৌম্য সরকারের ওপেনিং জুটিতে তুলেছে ৯৫ রান। দারুণ শুরুর পরও শেষ মুহূর্তে অমন ব্যাটিং বিপর্যয়। ব্যাটসম্যানদের অল্পতেই তুষ্ট হওয়াটা একটা রোগ হিসেবে দেখছেন সামারাবীরা, ‘আপনি যদি শীর্ষ পাঁচে ব্যাটিং করেন, সেঞ্চুরি করতে হবে। যদি ফিফটিতেই খুশি হয়ে যান তাহলে তো হবে না। সর্বশেষ দুই টেস্ট বিশেষ করে গলে দেখেছেন, নো বলে বেঁচে যাওয়ায় তাদের ব্যাটসম্যান (কুশল মেন্ডিস) শুধু ১০০ রানে থামেনি। ১৯০ রানের (আসলে ১৯৪) বড় ইনিংস খেলেছে। টেস্ট মানেই বড় ইনিংস খেলা, বিশেষ করে এমন ভালো পিচে।’

সামারাবীরার আশা, এখনো যে ব্যাটসম্যান আছে তাতে বাংলাদেশ ৫০ রানের লিড নিতে পারে। সাকিবরা বাংলাদেশ ব্যাটিং পরামর্শকের আশাকে বাস্তব রূপ দিতে পারবেন?

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s